বিশ্বকাপ জিতেও নিষেধাজ্ঞার কবলে তিন ক্রিকেটার

যুব বিশ্বকাপের চ্যাম্পিয়ন বাংলাদেশ ও রানার্স আপ ভারতের পাঁচজন ক্রিকেটারকে চার থেকে ১০ ম্যাচের নিষেধাজ্ঞা দিয়েছে ক্রিকেটের নিয়ন্ত্রক সংস্থা আইসিসি। দক্ষিণ আফ্রিকার পচেফস্ট্রুমে রোববার বাংলাদেশ ট্রফি জেতার পরে মাঠের মধ্যেই দুই দলের ক্রিকেটারদের বাকযুদ্ধে লিপ্ত হতে এবং ধাক্কাধাক্কি ও হাতাহাতিতে জড়িয়ে পড়তে দেখা যায়।

এ নিয়ে ব্যাপক আলোচনা সমালোচনার মধ্যেই পাঁচজন ক্রিকেটারকে শাস্তি দেবার কথা জানালো আইসিসি। এই পাঁচজনের মধ্যে তিনজন বাংলাদেশি এবং দুইজন ভারতীয় ক্রিকেটার।

বাংলাদেশের খেলোয়াড়দের মধ্যে শাস্তিপ্রাপ্তরা হচ্ছেন তওহিদ হৃদয়, শামিম হোসেন এবং রাকিবুল হাসান। এদের প্রত্যেকেই আইসিসির কোড অব কন্ডাক্ট ভঙ্গ করেছেন এবং প্রত্যেককে ৬টি করে ডিমেরিট পয়েন্ট দেয়া হয়েছে। অন্যদিকে, ভারতের আকাশ সিং এবং রবি বিষ্ণয়কে পাঁচটি করে ডিমেরিট পয়েন্ট দেয়া হয়েছে।

বাংলাদেশের অভিষেক দাসকে আউট করার পর ‘খারাপ ভাষা ব্যবহার, অশালীন ইঙ্গিত এবং অবজ্ঞাসূচক অঙ্গভঙ্গির মাধ্যমে প্রতিপক্ষকে বিবাদে উস্কানি’ দেবার অভিযোগে বিষ্ণয়কে দুটি বাড়তি ডিমেরিট পয়েন্ট দিয়েছে আইসিসি। আইসিসির কোড অব কন্ডাক্ট অনুযায়ী সাধারণত একটি ডিমেরিট পয়েন্টের বিপরীতে দুইটি সাসপেনশন পয়েন্ট দেয়া হয়।

প্রতিটি সাসপেনশন পয়েন্টের জন্য একটি ওয়ানডে অথবা টি-টোয়েন্টি ম্যাচ, অনূর্ধ্ব-১৯ পর্যায়ের ম্যাচ বা আন্তর্জাতিক ম্যাচে নিষেধাজ্ঞা বোঝায়। আইসিসি এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানিয়েছে, শাস্তি হিসেবে এ ক্রিকেটাররা চার থেকে ১০ ম্যাচ পর্যন্ত নিষিদ্ধ থাকবেন। শাস্তি কার্যকর হবে আসন্ন যেকোনো আন্তর্জাতিক ম্যাচ, তা বয়স ভিত্তিক কিংবা বড়দের ম্যাচ যাই হোক।

বাংলাদেশের তওহিদ হৃদয় পেয়েছেন ১০টি সাসপেনশন পয়েন্ট, এর মানে হচ্ছে তিনি আগামী ১০টি ম্যাচ খেলতে পারবেন না। একেকটি সাসপেনশন পয়েন্টের বিপরীতে একটি ম্যাচে নিষেধাজ্ঞা বোঝায়।

সে অনুযায়ী শামিম হাসান খেলতে পারবেন না আগামী আট ম্যাচে। রাকিবুল হাসান পেয়েছেন চারটি সাসপেনশন পয়েন্ট, মানে চারটি ম্যাচে খেলতে পারবেন না।

অন্যদিকে, ভারতের আকাশ সিং আট ম্যাচ খেলতে পারবেন না, আর রবি বিষ্ণয় অনুপস্থিত থাকবেন পাঁচ ম্যাচ। তবে বিষ্ণয় দুইটি বাড়তি ডিমেরিট পয়েন্ট পেয়েছেন, যেগুলোর জন্য তিনি কতটি সাসপেনশন পয়েন্ট পেলেন সেটি আইসিসির সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে উল্লেখ করা হয়নি।

আইসিসির নিয়ম অনুযায়ী, প্রত্যেক খেলোয়াড়ের রেকর্ডে আগামী দুই বছর পর্যন্ত এই ডিমেরিট পয়েন্ট থাকবে। শাস্তিপ্রাপ্ত খেলোয়াড়েরা অনূর্ধ্ব ১৯ কিংবা অন্য যেকোনো আন্তর্জাতিক ম্যাচে যখনই অংশ নেবেন, এই সাসপেনশন পয়েন্ট প্রযোজ্য হবে।

রোববার ৪৬ ওভারে ১৭০ রানের লক্ষ্য তাড়া করে যুব বিশ্বকাপের শিরোপা জেতে বাংলাদেশ। ম্যাচ শেষে হতাশ ভারতীয়দের সামনে যখন উদযাপনে ব্যস্ত বাংলাদেশ যুব দল, সেসময় টিভি সম্প্রচারের ক্যামেরায় দেখা যায় দুদলের খেলোয়াড়দের জটলা ও ধাক্কাধাক্কি। মাঝখানে আম্পায়ারদের দেখা যায় দুদলের ক্রিকেটারদের শান্ত করতে।

Spread the love

Facebook Comments