কেন ভাঙল অপূর্বর দ্বিতীয় বিয়েও?

সবার একটাই প্রশ্ন সংসার ভাঙল কেন অপূর্ব আর নাজিয়ার। সেই এই বিষয়ে অভিনেতা অপূর্ব এবং তার স্ত্রী নাজিয়া কেউই স্পষ্ট করে কিছু বলেননি। আর এই বলার কারণেই কি যে যার মতো করে প্রশ্নের উত্তর খুঁজে নিচ্ছেন?

নানান ধরনের গুঞ্জনই শোনা যাচ্ছে তবে সেসবে কান না দেওয়ার অনুরোধ করেছেন অপূর্ব।

অপূর্ব লিখেছেন, ‘ব্যক্তিগত জীবন নিয়ে গসিপ করা এবং তীর্যক, মিথ্যা বানোয়াট মন্তব্য করে তাদের কষ্ট বাড়িয়ে দেওয়ার মতো খারাপ কাজগুলো থেকে সবাই বিরত থাকবেন। রসালো কোন গল্প তৈরি করে সংবাদ করার চেষ্টা করবেন না, প্লিজ।’ অপূর্ব সেখানে এও লিখেছেন, ‘অত্যন্ত সম্মানের সঙ্গে জানাচ্ছি, আমি এবং আমার স্ত্রী অদিতি (নাজিয়া হাসান) অত্যন্ত শান্তিপূর্ণ সমাধানের মধ্য দিয়ে আমাদের সম্পর্কের আইনগত ইতি টেনেছি। কোন সংবাদমাধ্যম এই ব্যাপারে তৃতীয় কাউকে জড়িয়ে কোন ধরনের ভুল সংবাদ প্রকাশ করলে আমি তাদের বিরুদ্ধে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে আইনগত ব্যবস্থা নেব। অলরেডি প্রকাশিত কিছু সংবাদের লিংক আমি সংগ্রহ করেছি। আমি অদিতিকে সম্মান করি এবং আজীবন করব। সুতরাং কোনোভাবেই অদিতিকে অসম্মান করে তার পাশে অন্য কারো নাম আমি সহ্য করব না। ভুলে যাবেন না, অদিতি এখন আইনগতভাবে আমার স্ত্রী না থাকলেও সে আমার সন্তানের মা।’

অন্যদিকে অপূর্বর এমন পোস্টের কিছুক্ষণ পরেই তানজিন তিশা লিখেছেন, ‘আমি সাধারণত গুজবে সাড়া দিই না। তবে আজ আমি অনুভব করছি যে, কয়েকটি অনলাইন সংবাদপত্রে প্রকাশিত চলমান গসিপ বন্ধ করা উচিত। দয়া করে আমার নামটি ব্যবহার করবেন না, এতে আমার সহশিল্পী এবং তাঁর পরিবারের চলমান পরিস্থিতি আরও খারাপ হবে। আমি সত্যিকার অর্থে বিশ্বাস করি যে, কেউ আমার ভাবমূর্তি নষ্ট করার জন্য ইচ্ছাকৃতভাবে এসব করছে।’

এদিকে কয়েক মাস ধরে টানাপোড়েন চলছিল অভিনয়শিল্পী অপূর্বর সংসারে। স্ত্রী নাজিয়া হাসান ও অপূর্ব আলাদা থাকছেন। সহকর্মীদের অনেকেই বলাবলি করছিলেন, তাঁদের বিচ্ছেদের ঘণ্টা বাজল বলে। অপূর্বর মুখ থেকে বিষয়টি জানা না গেলেও জানালেন নাজিয়া। নিজের ফেসবুকে তিনি লিখেছেন, ‘স্টপ কলিং মি ভাবি এভরিওয়ান।’ আজ রোববার বিকেলে তাঁর এ পোস্ট থেকে মোটামুটি পরিস্কার হওয়া যায় যে, তাঁরা আর একসঙ্গে নেই। এমনকি নিজের প্রোফাইলে ‘ডিভোর্স’ শব্দটিও যুক্ত করে নিয়েছেন নাজিয়া।

২০১১ সালের ১৪ জুলাই নাজিয়া হাসান অদিতিকে বিয়ে করেন অপূর্ব। ২০১৪ সালের জুন মাসে বাবা-মা হন তাঁরা। নাজিয়াকে বিয়ে করার আগে অভিনয়শিল্পী জিয়াউল ফারুক অপূর্ব পালিয়ে বিয়ে করেন আরেক অভিনয়শিল্পী সাদিয়া জাহান প্রভাকে। বিয়ের কিছুদিন পরই তাঁদের বিচ্ছেদ ঘটে।

Spread the love

Facebook Comments