করোনাকে হারালো ১০ মাস বয়সী চট্টগ্রামের এই শিশু

করোনাকে হারিয়ে মায়ের কোলে চড়ে বাড়ি ফিরেছে চট্টগ্রামের চন্দনাইশের ১০ মাস বয়সী শিশু আবির হোসেন।

চট্টগ্রাম জেনারেল হাসপাতালের আইসোলেশন ওয়ার্ডে টানা ১১ দিন করোনার বিরুদ্ধে যুদ্ধ করতে হয়েছে ছোট্ট শিশু আবিরকে।

পরপর দুইবার নমুনা পরীক্ষায় করোনা নেগেটিভ আসায় শিশু আবিরকে চট্টগ্রাম জেনারেল হাসপাতাল থেকে ২ মে দুপুরে ছাড়পত্র দেওয়া হয়েছে।

উল্লেখ্য, পুরো চট্টগ্রামে করোনায় আক্রান্তদের মধ্যে শিশু আবির সবচেয়ে কম বয়সী।

সংশ্লিষ্ট সূত্র মতে, চন্দনাইশ পৌরসভার ৩নং ওয়ার্ডের পূর্ব জোয়ারা মোবারক খলিফার বাড়ির ওমান প্রবাসী মাহবুবুল আলমের পুত্র শিশু আবির হোসেনের নিউমোনিয়া হওয়ায় গত ২৯ মার্চ তাকে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ (চমেক) হাসপাতালে ভর্তি করানো হয়।

সেখানে টানা ১৭ দিন চিকিৎসার পর সুস্থ হওয়ায় আবিরকে বাড়িতে নিয়ে আসা হয় কিন্তু বাড়িতে আনার পর আবিরের আবার জ্বর ও সর্দি-কাশি হয়। পরে জ্বর ও সর্দি-কাশির সাথে শ্বাসকষ্ট শুরু হলে গত ১৭ এপ্রিল তাকে পুনরায় চমেক হাসপাতালে নেওয়া হয়।

সেখানে নেওয়ার পর তার নমুনা সংগ্রহ করে পরীক্ষার জন্য ফৌজদারহাট বিআইটিআইডিতে পাঠানো হয়। নমুনা পরীক্ষা শেষে গত ২২ এপ্রিল বিআইটিআইডি হতে দেওয়া রিপোর্টে তার করোনা শনাক্ত হয়।

করোনা শনাক্ত হওয়ার পর শিশু আবিরকে চমেক হাসপাতাল থেকে চট্টগ্রাম জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে আসা হয়। এরপর থেকে জেনারেল হাসপাতালের আইসোলেশন ওয়ার্ডে মাকে সাথে রেখে তাকে চিকিৎসা দেওয়া হয়।

চিকিৎসা শেষে পর পর দুইবারের নমুনা পরীক্ষার রিপোর্টে করোনা নেগেটিভ আসায় আজ দুপুরে তাকে ছেড়ে দেওয়া হয়েছে।

শিশু আবির হোসেনের মা রুনা আকতার বলেন, ‘আমার পরিবার, নিকটাত্মীয় ও প্রতিবেশীসহ আর কারো করোনা হয়নি কিন্তু আমার কোলের এ ছোট্ট শিশুটি কীভাবে করোনার মতো প্রাণঘাতী রোগে আক্রান্ত হলো বুঝে উঠতে পারছি না। করোনা শনাক্ত হওয়ার আগে নিউমোনিয়ায় আক্রান্ত হওয়ায় আবিরকে টানা ১৭ দিন চমেক হাসপাতালে ভর্তি রেখেছিলাম। এর আগেও চমেক হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছিল। হয়তো সেখানে করোনায় আক্রান্ত কারো সাথে সংস্পর্শের কারণে আমার ছেলেও আক্রান্ত হয়েছে।’

তিনি আরো বলেন, ‘করোনা শনাক্ত হওয়ার পর আবিরকে জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে। আমিও সুরক্ষা সরঞ্জাম ব্যবহার করে সার্বক্ষণিক তার সাথে ছিলাম। আমার বুকের ধনকে সুস্থ করে আমার কোলে ফিরিয়ে দেওয়ার জন্য মহান আল্লাহর দরবারে শোকরিয়া আদায় করছি। একই সাথে চট্টগ্রাম জেনারেল হাসপাতালের সকল ডাক্তার ও নার্সদের প্রতি আমি কৃতজ্ঞ। তাদের আন্তরিক প্রচেষ্টায় আমার ছেলে সুস্থ হয়েছে।’

চন্দনাইশ উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. শাহীন হাসান চৌধুরী লিটু জানান, শিশু আবির হোসেন চন্দনাইশের একমাত্র করোনা রোগী। চট্টগ্রাম জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসা নিয়ে সুস্থ হয়ে আবির ঘরে ফিরে এসেছে।

চট্টগ্রাম সিভিল সার্জন ডা. সেখ ফজলে রাব্বি জানান, চট্টগ্রামে করোনায় আক্রান্তদের মধ্যে সবচেয়ে কম বয়সী হলো চন্দনাইশের শিশু আবির। চট্টগ্রাম জেনারেল হাসপাতালে মাকে সাথে রেখে শিশুটিকে চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে। শিশু আবির এখন পুরোপুরি সুস্থ। পরপর দুইবার নমুনা পরীক্ষার রিপোর্ট নেগেটিভ আসায় আজ দুপুরে তাকে ছেড়ে দেওয়া হয়েছে।’

সিভিল সার্জন আরো জানান, শিশুটির মা সহ পরিবারের সবার নমুনা পরীক্ষা করা হয়।

Facebook Comments